Sourav Ganguly: দাদার পাশেই বোর্ড, স্পষ্ট ইঙ্গিত দিলেন বিসিসিআই কর্তা ধুমাল

খবর চাউর হয়েছিল যে, বিসিসিআই-এর শেষ বোর্ড মিটিংয়ে বোর্ড সদস্যদের কাছ থেকে নেতিবাচক মন্তব্য শুনতে হয়েছিল সৌরভ গাঙ্গুলী কে। বোর্ডের-এর সভাপতি হিসেবে পারফরমেন্সটা মোটেও ভালো ছিল না, এমন খবর রটিয়ে দেওয়া হয়েছিল। তবে সেই বাজে খবরকে একেবারে উড়িয়ে দিলেন বিসিসিআই-এর কোষাধ্যক্ষ অরুণ ধুমাল।

ধুমালের মতে বোর্ড সভাপতি হিসেবে ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অধিনায়কের কাজে বোর্ডের বাকি সসদ্যরা খুশিই ছিলেন। আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের ভবিষ্যতের চেয়ারম্যান সৌরভ গাঙ্গুলীর পাশে দাঁড়িয়ে এমনই মন্তব্য করলেন।

সংবাদসংস্থা পিটিআই-কে বিসিসিআইয়ের কোষাধ্যক্ষ অরুণ ধুমাল বলেছেন, ‘বিসিসিআই-এর গঠনতন্ত্রের নিয়মাবলী অনুসারে এখনও পর্যন্ত কোনও সভাপতি পরপর দু’বার দায়িত্ব সামলায়নি। স্বাধীন ভারতের ক্রিকেট ইতিহাসে এমন ঘটনা আগে কোনওদিন ঘটেনি। তাই “মহারাজ”কে পরবর্তী বোর্ড সভাপতি হিসেবে দেখা যাবে না।

গত কয়েকদিনে একাধিক প্রচারমাধ্যম দ্বারা জানতে পেরেছি যে সৌরভকে নাকি বোর্ডের শেষ আলোচনায় তিরস্কার করা হয়েছে, তাঁর কাজের নাকি সমালোচনা করেছেন বাকি সদস্যরা,এগুলো সব বাজে কথা।” এরপর তরুণ ধুমাল ফের যোগ করেন, “দাদার বিরুদ্ধে কেউ একটাও কথা বলেননি। এগুলো একেবারেই ভিত্তিহীন খবর। সবাই দাদা-র কাজে খুবই খুশি। কোভিড-এর মধ্যেও যেভাবে গত তিন বছর দাদা বিসিসিআই-কে পরিচালনা করেছেন সেটা দারুণ প্রশংসনীয়। অধিনায়ক হিসেবে দাদা যেমন দাপট দেখিয়েছেন, ঠিক তেমনভাবেই প্রশাসক হিসেবেও তিনি সফল।”

বোর্ড কর্তাদের মধ্যে শেষ আলোচনায় বোর্ড সভাপতির পদ থেকে সৌরভকে সরিয়ে তাঁকে আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যানের পদ দেওয়া হয়। সেই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে দেন “মহারাজ”। এই খবরের সত্যতা স্বীকার করে নিয়েছেন বোর্ডের বিদায়ী কোষাধ্যক্ষ অরুণ ধুমাল। তিনি ফের বলেন, ‘যারা মনোনয়ন জমা দিয়েছে, তাদের সঙ্গেই ছিল দাদা।

সব কিছু ওঁকে জানিয়েই করা হয়েছে। ওঁকে আইপিএলের চেয়ারম্যান করার কথা বলা হয়েছিল। না হলে রজারের কোনও সুযোগই ছিল না। বিশ্বকাপজয়ী বলেই রজারকে সভাপতি করার কথা ভাবা হয়েছে। দাদা আইপিএল চেয়ারম্যান হতে রাজি হলে আমি কমিটিতে থাকতাম না। তাতে আমার কোনও সমস্যাও হত না। তবে পরের বছরের বিশ্বকাপের কথা ভেবে বলতে পারি, রজার বিনি সভাপতি হলে খুবই ভালো হবে।’

বিসিসিআই ক্রিকেট বোর্ডের বার্ষিক সাধারণ সভা আগামী ১৮ই অক্টোবর হবে। সেই সভার শেষে নতুন প্যানেলের নাম আনুষ্ঠানিক ভাবে ঘোষাণা করা হবে। এখন দেখা যাক বোর্ডের সভাপতি গদি হারানো সৌরভ আইসিসি-র চেয়ারম্যান হিসেবে নতুন ইনিংস শুরু করতে পারেন কিনা।