সবসময় সৌরভের নিন্দা করে বেড়াত কোহলি! স্টিং ভিডিওয় বিষ্ফোরক স্বীকারোক্তি প্রধান নির্বাচকের !!

নির্বাচক কমিটির চেয়ারম্যান স্টিং অপারেশনে ধরা পড়ে বিস্ফোরক বক্তব্য দিয়েছেন। তিনি সেখানে সরাসরি বলেছেন, সৌরভকে নিয়ে সব সময় বিরাট কোহলি কুৎসা করত। কারণ কোহলি ধারণা ছিল সৌরভের হাত রয়েছে তার ওয়ানডে নেতৃত্ব যাওয়ার পিছনে।

টি টোয়েন্টি ওয়ার্ল্ড কাপ ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরের শুরু হওয়া ঠিক আগেই কোলে জানিয়ে দেন তিনি জাতীয় টি-টোয়েন্টি দলের ক্যাপ্টেন থেকে সরছেন। তা ঠিক দুমাস পরে ডিসেম্বরে কোহলিকে বোর্ডের তরফ থেকে ওয়ানডের নেতৃত্ব থেকেও ছেঁটে ফেলা হয়। বিসিসিআইয়ের তরফে ওয়ানডের নেতা ঘোষণা করা হয় রোহিত শর্মাকে। সৌরভ তারপর বলেন, টি-টোয়েন্টি নেতৃত্ব থেকে কোহলিকে সরতে বারণ করা হয়েছিল। কারণ ঠিক নয় সাদা বলের ক্রিকেটে দুজন অধিনায়ক।

এরপরে সৌরভের মন্তব্যে কোহলি প্রকাশ্যে বিরোধিতা করেন। বলেন, তার কাছে বোর্ডের তরফ থেকে কোনও অনুরোধ আসেনি নেতৃত্ব ছাড়ার বিষয়ে। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যাওয়ার আগে কোহলি বিস্ফোরক প্রেস কনফারেন্সে বলেন, তাকে জানানো হয় নেতৃত্ব থেকে ছেঁটে ফেলার মাত্র দেড় ঘন্টা আগে।

চেতন শর্মাকে জি নিউজের স্টিং অপারেশনে বলতে শোনা গিয়েছে, নেতৃত্ব ছাড়ার আগে কোহলিকে সৌরভ অনুরোধ করার একবার ভেবে দেখার জন্য। তবে ভিডিও কনফারেন্সে কোহলি হয়তো ঠিকমত শুনতে পাননি।

চেতন শর্মা ভিডিওতে বলেছেন, “বিরাট কোহলির মনে হয়েছে, সৌরভের হাত রয়েছে তার নেতৃত্ব হারানোর পিছনে। নির্বাচক কমিটির তরফ থেকে ভিডিও কনফারেন্সে ছিল ৯ জন। সেই সময় টি-টোয়েন্টি নেতৃত্ব ছাড়ার বিষয়টি নিয়ে কোহলিকে একবার ভেবে দেখতে বলেছিল সৌরভ। মনে হচ্ছে, সেটা শুনতে পায়নি কোহলি। সৌরভ ছাড়াও সেখানে আমি সহ ৯ জন ছিল বাকি নির্বাচক মিলিয়ে।”

বিস্ফোরকভাবে চেতন শর্মা বলেছেন যে, ইগোর সংঘাত ছিল হয়তো সৌরভের সাথে কোহলির।“দুই ইগোর সংঘাত। একজন ভাবছে নেতৃত্ব থেকে সৌরভ তাকে সরিয়েছে, তাই একটা শিক্ষা দেব ওকে। এমন একটা বিবৃতি কোহলি দিয়েছিল যার গোটা উদ্দেশ্যটাই ছিল সৌরভকে কলঙ্কিত করা। মিডিয়ায় মুখ খুলে নিন্দা করতে চেয়েছে সৌরভকে। তবে ওর দিকেই পুরো বিষয়টি ফিরে এসেছে।”

সেই সময় সৌরভ বলেন, “বিসিসিআইয়ের তরফ থেকে আমরা কোহলিকে বারণ করেছিলাম নেতৃত্ব ছাড়তে। আমাদের অধিনায়কত্ব বদলের কোনরকম পরিকল্পনা ছিল না। তবে নেতৃত্ব ছাড়ল ও। তারপর নির্বাচকেরা ঠিক করল স্পিলিট ক্যাপ্টেনশিপ সীমিত ওভারে না রাখাই ভালো। মোদ্দা কথা হল, দুজন অধিনায়ক সীমিত ওভারের ফরম্যাটে রাখা হবে না।”

সৌরভের পাশে গোটা ইস্যুতে চেতন শর্মা দাঁড়িয়ে ছিলেন। এবার তিনি স্টিং ভিডিওয় বলেছেন,“পুরোপুরি এটা ইগোর সংঘাত। কোহলিরও বক্তব্য সেরা। ও আরো বড় সৌরভ বলে। জাতীয় দলের ক্যাপ্টেন সৌরভও ছিলেন। বিশ্বাসযোগ্য ও বিশাল বড় মাপের ক্যাপ্টেন। এখনো পর্যন্ত সৌরভকেই দেশের সফলতম অধিনায়কের মর্যাদা দেওয়া হয়। যদিও বিরাট মনে করে ওই সবথেকে সফলতম। সৌরভ মিথ্যা কথা বলছে বিরাট যদি বলে, তাহলে সংঘাতের বাতাবরণ তো তৈরি হবেই।”