লেটেস্ট খবরসাফল্যের খবর শিক্ষার খবরঅফবিটটেক নিউজ

INDW vs SLW Womens Asia Cup 2022: রেণুকা-রাজেশ্বরীদের দাপুটে বোলিং, রেকর্ড সপ্তম এশিয়া কাপ জিতল হরমনের প্রমীলাবাহিনী

WhatsApp Group   Join Now কয়েক মাস আগে এশিয়া কাপ ২০২১ থেকে খালি হাতে ফিরেছিল পুরুষ ভারতীয় দল। রোহিত শর্মার তারকাখচিত দল ব্যর্থ হয়েছিল সেমিফাইনালে ...

Published on:

WhatsApp Group   Join Now

কয়েক মাস আগে এশিয়া কাপ ২০২১ থেকে খালি হাতে ফিরেছিল পুরুষ ভারতীয় দল। রোহিত শর্মার তারকাখচিত দল ব্যর্থ হয়েছিল সেমিফাইনালে উঠতে। তবে হরমনপ্রীত কৌরের প্রমিলা বাহিনী কিন্তু এশিয়া কাপ ২০২২ জিতে দেশের মান বজায় রাখলেন। এই শ্রীলঙ্কান প্রমিলা বাহিনীর বিরুদ্ধে গ্রুপ পর্বে ৪১ রানে জিতেছিল ভারতের প্রমিলা বাহিনী।

অনেকেই মনে করেছিল ফাইনালে জোর লড়াই হবে। কারণ সেমি ফাইনালে চামারি আতাপাত্তুর নেতৃত্বে শ্রীলঙ্কার মহিলা দলের দাপুটে পারফরম্যান্স দেখিয়ে পাকিস্তানী মহিলা দলকে মাত্র ১ রানে হারিয়ে ফাইনালের টিকিট পেয়েছিল। ফাইনালে ভারতের সামনে পড়তেই শ্রীলঙ্কার সব জারিজুরি বন্ধ হয়ে গেল। ভারত মাত্র ৬৫ রানে নয় উইকেট শ্রীলঙ্কাকে আটকে দেয়, তখন ভারতের আছে জয়টা ছিল শুধু সময়ের অপেক্ষা আর তাই হল।

ভারতীয় সময় ঘড়ির কাঁটায় যখন ৩:১১ মিনিট, তখন স্মৃতি মান্ধানার ব্যাট থেকে এল ম্যাচ ফিনিশ করার শট। মিড উইকেটের উপর দিয়ে ছক্কা মেরে বিপক্ষকে ৮ উইকেটে হারিয়ে ভারতের ঝুলিতে সপ্তমবার এশিয়া কাপ এনে দিলেন তারকা মহিলা ওপেনার স্মৃতি মান্ধনা। তাঁর শট ও দলের জয় নন স্ট্রাইকার এন্ড থেকে তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করলেন মহিলা দলের অধিনায়ক হরমনপ্রীত কৌর।

ভারতীয় মহিলা দলের বোলাররাই কিন্তু এই ট্রফি জয়ের আসল কারিগর। রেণুকা সিং, রাজেশ্বরী গায়কোয়াড় এবং স্নেহ রানার জন্যই ফাইনালে ভারতীয় মহিলা দল ওয়ান সাইডেড জয় পেয়ে ট্রফি নিয়ে দেশে ফিরছে। দুরন্ত বোলিং পারফরম্যান্সের উপর ভর করে বিপক্ষকে মাত্র ৬৫ রানে আটকে রেকর্ড সপ্তম এশিয়া কাপ জয়ের দিকে এক পা বাড়িয়ে দিয়েছিল ভারতীয় প্রমীলাবাহিনী।

রেণুকা সিং ঠাকুর, রাজেশ্বরী গায়কোয়াড়ের বোলিংয়ে কার্যত অসহায় হয়ে আত্মসমর্পণ করলেন লঙ্কান ব্যাটাররা। ফাইনালে চামারি আতাপাত্তুর নেতৃত্বে শ্রীলঙ্কার মহিলা দল নির্দিষ্ট কুড়ি ওভারে নয় উইকেট খুইয়ে রান করেন মাত্র ৬৫, সেই রানটি ভারতীয় মহিলা দল হাসতে হাসতে তুলে দেয়।

সেমিফাইনালে তাইল্যান্ডের বিরুদ্ধে ৭৪ রানে দুরন্ত জয় পেয়েছিল ভারত। সেই প্লেয়িং ১১ থেকে একটি বদল করে এদিন মাঠে নামে ভারত। হেমলতা ফাইনালে ভারতীয় একাদশে ফেরেন রাধা যাদবের বদলে।চামারি পরিকল্পনা করেছিলেন বড় ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে বোর্ডে বেশি রান লাগিয়ে প্রতিপক্ষকে চাপে ফেলবেন।

সেই লক্ষ্যেই টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন চামারি আতাপাত্ত।তবে শ্রীলঙ্কান দলের শুরুটাও ভালো হয়নি, ১০ রান করতে গিয়ে চার উইকেট হারিয়ে ফেলে শ্রীলঙ্কা। নতুন বল হাতে সুইংয়ের আগুন ঝরান রেণুকা ঠাকুর।তিনি শুরুতেই তিন ওভার বল করে পাঁচ রান দিয়ে তিনটি উইকেট নেন। শুরুতেই চাপে পড়ে যায় শ্রীলঙ্কার টিম পরে গোটা ইনিংসে কোনও সময়ই সেই চাপ থেকে বেরিয়ে আসতে পারেনি শ্রীলঙ্কান ব্যাটাররা।

অল্প রানের ব্যবধানে উইকেট হারাতে থাকেন তাঁরা। রেণুকার পর বল হাতে আগুন ঝরান ভারতীয় দলের স্পিনাররা। রাজেশ্বরী গায়কোয়াড় এবং স্নেহ রানা শ্রীলঙ্কা দলকে চাপমুক্ত হওয়ার বিন্দুমাত্র সুযোগ দেননি। শ্রীলঙ্কার ব্যাটারদের মধ্যে দুইজনই মাত্র দশের বেশি রান করতে পারেন। সাত নম্বরে ব্যাটে নামা ওশাদি ফার্নান্ডো ১৩ রান করেন ও দশে নামা ইনোকা রানায়িরা লঙ্কান দলের হয়ে সর্বাধিক ১৮ রান করেন।

রাজেশ্বরী চার ওভার বল করে ১৬ রানে ২ উইকেট ও স্নেহ রানা চার ওভার বল করে ১৩ রানে ২ উইকেট নিয়েছেন।লঙ্কান অধিনায়ক চামারি আতাপাত্ত এদিন ছয় রানের বেশি করতে পারেননি। শ্রীলঙ্কানরা নির্ধারিত ২০ ওভার ব্যাট করে নয় উইকেটে ৬৫ রানেই থামে যায়। তখনই বোঝা গিয়েছিল যে ভারতের ট্রফি জয়ে শুধু সময়ের অপেক্ষা,আর তাই হল।

About Author