ইলেকশনের বদলে হবে সিলেকশন, বোর্ড সভাপতির বিদায়ের সাথে সাথেই অধিনায়কত্ব হারাতে যাচ্ছে রোহিত শর্মা!

বিসিসিআই এর সভাপতিত্বের দিন শেষে বিদায়ের পথে সৌরভ গাঙ্গুলী। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের আর কোন পদে তাঁকে দেখা যাবে না। তিনি নতুন করে মনোনয়নপত্র জমা দেননি।বিসিসিআইতে একটি নিয়ম খুব চলে। সেটি হল কোন পদের ইলেকশনের বদলে সিলেকশন, এবারও সেটি হতে চলেছে।

ফলে এবার বিসিসিআই-এর সভাপতি আসনে বসতে চলেছেন ১৯৮৩ সালের বিশ্বকাপ জয়ী বোলার রজার বিনি। তবে সৌরভ গাঙ্গুলীর বিদায়ে ভারতীয় ক্রিকেট দলে হতে পারে একাধিক পরিবর্তন। রোহিত শর্মার ক্যাপ্টেন্সি তারমধ্যে গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছেন। তালিকায় আগে থেকেই রয়েছেন ভারতীয় দলের হেড কোচ রাহুল দ্রাবিড় ও ভিভিএস লক্ষ্মণের নাম।

তবে তাদের বিদায় হতে পারে পারফরমেন্সর উপর বিচার করে। কিন্তু বোর্ডের নজরে এবার রোহিত শর্মা। বোর্ডের সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলির বিদায়ের পর এবার ভারতীয় ক্রিকেট দল থেকে সৌরভের ঘনিষ্ট বলে পরিচিত দের সরাতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। কারণ সৌরভের কর্ম কৌশল ও পদক্ষেপ নিয়ে মোটেও খুশি ছিলেন না বোর্ড মেম্বাররা।

সৌরভের সভাপতিত্ব সময় বিরাট কোহলিকে ভারতীয় দলের অধিনায়ক পদ থেকে সরিয়ে দিয়ে তাঁর জায়গায় নতুন অধিনায়ক বানানো হয় রোহিত শর্মাকে। ভারতীয় দল রোহিতের নেতৃত্বে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ জিতলেও বড় বড় পরীক্ষায় কোন ফল পারেনি। যা হল সবথেকে বড় প্রশ্ন।

২০২১ এর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর বিরাট কোহলির সঙ্গে বোর্ড সভাপতি সৌরভের মধ্যেকার বিবাদ কারোর অজানা নয়। বিরাট বিরাট কোহলির অধিনায়কত্বকে কেন্দ্র করে বিরাটকে না জানিয়েই ওডিআই অধিনায়কত্ব থেকে তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

যদিও সৌরভ গাঙ্গুলি জানিয়েছিলেন যে বিরাটকে ফোন করা হয়েছিল তারপর তাকে ভারতীয় দলের অধিনায়ক থেকে বাদ দেওয়া হয়। কিন্তু বিরাট কোহলি সাংবাদিক বৈঠকে এসে সৌরভ গাঙ্গুলীর নাম না করে ভোট সভাপতি কে মিথ্যাবাদী বলে আক্রমণ করেন।

বিরাটের পরেই দলের দায়িত্ব আসে রোহিতের কাঁধে।শোনা যাচ্ছিল যে অনেকদিন অফ ফর্মে থাকা বিরাটের উপর কোপ পড়তে পারে, সেটাই হয়েছিল।বিরাটকে ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়কের পদ থেকে সরিয়ে রোহিত কে অধিনায়ক করার পিছনে সৌরভের যে হাত তা দেখেছিল অনেকেই। বিরাট-শাস্ত্রী জুটি সরিয়ে রোহিত-রাহুল জুটি তৈরি করলেন ভারতীয় বোর্ডে তাতেও সেভাবে লাভ হয়নি।

দল দ্বিপাক্ষিক সিরিজ জিতলেও বড় বড় টুর্নামেন্টে কোন সাফল্য আসেনি। ভারতীয় দলের একটি বড় সমস্যা হল ঘনঘন বিশ্রাম। দেখা গেছে ২০২১ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর থেকে ভারতীয় দলের অধিনায়কত্ব ছিল ঠিক মিউজিক্যাল চেয়ার। রোহিত শর্মার পাশাপাশি দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন একাধিক প্লেয়ার।

যা নিয়ে একাধিক সময় বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠতে থাকে। ঘনঘন সিরিজের আয়োজন আর তাতে অধিনায়ক রোহিত শর্মার বিশ্রাম ছিল অন্যতম আলোচ্য বিষয়বস্তু। সেই আলোচনার আগুনে ঘি ঢেলে দিয়েছিল রোহিতের অফ ফর্ম। বেশিরভাগ ম্যাচে মেরে খেলতে গিয়ে উইকেট দিয়ে এসেছেন তিনি। তাঁর অফ ফর্ম নিয়ে এই সব প্রশ্ন উঠতে থাকে বোর্ডের ভিতর।