বিরাট আউট হলেই ভারত শেষ! রোহিতদের কটাক্ষ করে ‘গুরু গ্রেগ’-এর মাইন্ড গেম শুরু !!

এখনো কয়েকদিন সময় আছে মহারণের প্রথম বল মাটিতে পড়তে। তবে এরই মধ্যে গ্রেগ চ্যাপেল মাইন্ড গেম শুরু করে দিলেন। রোহিত শর্মার টিম ইন্ডিয়াকে কটাক্ষ করলেন। অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন অধিনায়কের দাবি, ভারতীয় দলের ব্যাটিং নির্ভর করছে একমাত্র বিরাট কোহলির উপর! অর্থাৎ দ্রুত ‘কিং কোহলী’-কে ফেরাতে পারলেই প্যাট কমিন্সের অজিবাহিনী আসন্ন বর্ডার গাভাস্কার ট্রফি জিততে পারবে। আসন্ন টেস্ট সিরিজে চোটের জন্য জসপ্রিত বুমরাহ ও ঋষভ পন্থরা নেই। ফলে ভারতীয় দল দুই ম্যাচ উইনারের অভাব আরো বোধ করবে। ‘গুরু গ্ৰেগ’ এমনটাই মনে করেন।

ভারতীয় দলের প্রাক্তন কোচ দেশজ সংবাদ মাধ্যম ‘দা এজ’-কে বললেন, “এবার টেস্ট সিরিজ অস্ট্রেলিয়া জিততেই পারে। কারণ এই ভারতীয় দল গত কয়েক বছরের তুলনায় অনেক দুর্বল। বুমরা ও পন্থ চোটের জন্য নেই। সবে চোট সারিয়ে এসেছে রবীন্দ্র জাদেজা। এমন পরিস্থিতিতে বিরাটের উপর রোহিতদের ব্যাটিং অনেকটা নির্ভরশীল হয়ে আছে। অস্ট্রেলিয়া তাই দাপট দেখাতে পারবে দ্রুত বিরাটকে ফেরালেই।”

সীমিত ওভারের ফরম্যাটে শতরান করেছেন সাড়ে তিন বছরের খরা কাটিয়ে। তবে এখনো টেস্ট ক্রিকেটে শতরান অধরা। সেই অধরা মাধুরীকে ধরতেই বিরাট নামছেন আসন্ন বর্ডার গাভাস্কার ট্রফিতে। নাগপুরে দলের সাথে ইতিমধ্যেই যোগ দিয়েছেন। তবে ব্যাটিং নয় শুধু বরাবরের মতো জিমেও অনেকটা সময় কাটাচ্ছেন স্বাস্থ্য সচেতন বিরাট। টিম ইন্ডিয়া প্রাক্তন অধিনায়ক জিম করার সেই ভিডিও ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেছিলেন।

অজিদের বিরুদ্ধেই ১০৪ টি টেস্ট মিলে ৮১১৯ রান করা বিরাটের সেরা পারফরম্যান্স। এর মধ্যে ১৬৮২ রান করেছিলেন ২০টি টেস্ট মিলে। ৪৮.০৫ গড় ছিল। পাঁচটি অর্থশতরান ও সাতটি শতরান আছে সাথে। ২০১৪ সালে মেলবোর্নে ১৬৯ রান করেছিলেন। তবে একই সাথে তার শেষ টেস্ট ম্যাচ অজিদের বিরুদ্ধে, ৩৬ রানে দলের অল আউট হয়ে যাওয়ারও জ্বালা রয়েছে।

গ্রেগ চ্যাপেল প্যাট কমিন্সদের সেটা মনে করিয়ে আরো বললেন, “বড় ক্রিকেটার সবসময় জ্বলে ওঠে বড় মঞ্চে। এমনিতেই ছন্দে রয়েছে বিরাট। কাটিয়ে ফেলেছে সীমিত ওভারে শত রানের খরা। এবার আবারও দাপট দেখাতে চায় টেস্ট ক্রিকেটে। মাঝে বিশ্রাম নেওয়ার জন্য একেবারে তরতাজা হয়ে বিরাট মাঠে নামবে। এছাড়াও ওর পারফরম্যান্স অস্ট্রেলিয়া বিরুদ্ধে খুবই ভালো। সাবধান থাকতে হবে আমাদের বোলারদের।”

সেই ২০০৪-০৫ মরশুমে ঘরের মাঠে ভারত শেষ বার ২-১ ব্যবধানে হেরেছিল। ‘মেন ইন ব্লু’ এরপর থেকে দেশে আর ব্রিগেড টেস্ট সিরিজ হারেনি। এর থেকেও তৃপ্তির ব্যাপার হলো, টিম ইন্ডিয়ার নাম লেখা আছে গত তিনবার বর্ডার গাভাস্কার ট্রফিতে। এর মধ্যে আবার ২০১৮-১৯ ও ২০২০-২১ মরশুমে ডাউন আন্ডার সফরে গিয়ে ভারত জিতেছিল সিরিজে দাপট দেখিয়ে। সেই ধারাবাহিকতা রোহিতের দল বজায় রাখতে পারে কি না এখন সেটাই দেখার। নাগপুরের জামথা স্টেডিয়ামে ৯ই ফেব্রুয়ারি প্রথম টেস্ট শুরু হবে।