বোর্ডে তীব্র সমালোচিত সৌরভ! গদি হারিয়ে প্রকাশ্যেই ভেঙে পড়লেন মহারাজ

সৌরভ গাঙ্গুলীকে বোর্ড থেকে সরতে হবে। ঠিক হয়ে গিয়েছে মঙ্গলবার রাতেই। বোর্ডের সভাপতি নির্বাচনে মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার শেষ দিনে বোর্ডের অন্দরমহল থেকে প্রস্থান ঘটতে চলেছে সৌরভ গাঙ্গুলীর কার্যত মাথা নিচু করে। আসন্ন ১৮ অক্টোবর সরকারিভাবে বোর্ডের তরফে এজিএম-এ হবে। সৌরভের বদলে রজার বিনির হাতে উঠতে যাচ্ছে সভাপতির চেয়ার।

বোর্ডের সভাপতির পরিবর্তনের জল্পনাটি গত কয়েকদিন ধরেই তুঙ্গে উঠেছিল। কারণ এতে জড়িয়েছিল সৌরভের আসন্ন ভবিষ্যৎ। বলা হচ্ছিল বোর্ডেই চেয়ার ছেড়ে দেওয়ার পরে বিসিসিআইয়ের ব্যাকিংয়ে তিনি আইসিসি চেয়ারম্যান পদের জন্য মনোনয়ন জমা দেবেন। কিন্তু বোর্ড সূত্রের খবর, বোর্ডের তরফ থেকে সৌরভকে আইপিএল চেয়ারম্যান হওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয় তিনি সঙ্গে সঙ্গে তা প্রত্যাখ্যান করেন।

তার মতে তিনি বোর্ডের শীর্ষপদে থাকার পর সেই সংস্থারই অধীনস্থ কোনও কমিটির প্রধান হতে চান না। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সৌরভ গাঙ্গুলী আইসিসি চেয়ারম্যান হওয়ার জন্য মনোনয়ন জমা দিলে বিসিসিআই ব্যাকিং করবে না।আর এই ঘটনা জানার পর চূড়ান্ত হতাশ হন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। সংবাদসংস্থা-কে বোর্ডের এক কর্তা জানিয়েছেন, “স্পষ্টতই সৌরভ গাঙ্গুলিকে বিধ্বস্ত ও চূড়ান্ত হতাশ লাগছিল।”

মঙ্গলবার বোর্ডের সভা শেষে সৌরভ অফিস থেকে একদম শেষে বের হন। তারপরে গাড়ির কাঁচ উঠিয়ে বেরিয়ে যান তার গন্তব্যের দিকে। ওই বৈঠকে সৌরভের সভাপতিত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠে। তার সভাপতি থাকাকালীন পর্বকে ভীষণভাবে সমালোচনা করা হয়। বলা হয়, বোর্ড প্রেসিডেন্ট হিসেবে আন্ডার-পারফর্ম করেছেন তিনি।

যেভাবে সৌরভ গাঙ্গুলী বোর্ডের স্পনসর সংস্থার বিরোধী কোম্পানির হয়ে এন্ডোর্সমেন্টে জড়িয়েছেন তার জন্য তাকে তীব্র সমালোচনা করা হয়। সৌরভ চেয়েছিলেন তাঁকেই বোর্ডের সভাপতি হিসেবে কাজ করতে দেওয়া হোক নতুবা তাঁকে আইসিসিতে পাঠাক বোর্ড। তবে বিসিসিআই সৌরভের দিকে সমর্থনের হাত বাড়িয়ে দিতে নারাজ।

ক্রিকবাজ-এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, সভাপতি মনোনয়ন জমা দেওয়ার আগে বোর্ডের কমন মিটিংয়ে বোর্ডের মেম্বাররা সৌরভকে তাঁর কর্মপন্থা নিয়ে সরাসরি তুলোধনা করেন। সেই মিটিংয়ে বলা হয়েছে যে সৌরভ গাঙ্গুলী প্রেসিডেন্ট হিসেবে প্রত্যাশিত পারফরম্যান্স করতে পারেননি।বোর্ডের তরফে দাবি করা হয় পরপর দুটো টার্মে সভাপতি হওয়ার নজির নেই কারো নামে।

তাই সরতে হচ্ছে প্রিন্স অফ কলকাতা কে। সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, সৌরভের প্রধান সমালোচক হিসাবে আবির্ভূত হয়েছেন বোর্ডের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট এন শ্রীনিবাসন। বাইশ গজে থাকার সময় ব্যাটে-বলে টাইমিংয়ের জন্য প্রসিদ্ধ ছিলেন দাদা। ‘বাপি বাড়ি যা’ ঢংয়ে বহু বলকে করেছেন আউট অফ দি পার্ক। তবে সেরকম জোরদার হল না এইবারের ব্যাট বলের সংযোগটা।