কপালে তিলক নিতে অস্বীকার করলেন সিরাজ-উমরান! তীব্র কটাক্ষ সোশ্যাল মিডিয়াতে !!

একটি পুরনো ভিডিও নিয়ে মহম্মদ সিরাজ ও উমরান মালিক তীব্র কটাক্ষের শিকার হলেন। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে গত বছর সিরিজ চলার সময় এই ভিডিও তোলা হয়েছিল একটি পাঁচতারা হোটেলে পা রাখার সময়। কিন্তু কেন টিম ইন্ডিয়ার দুই তরুণ জোরে বোলার সোশ্যাল মিডিয়াতে সমালোচিত হচ্ছেন?

তারা এমন কী করলেন, যার ফলে তাদের ক্ষোভের মুখে পড়তে হলো? সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়ে যাওয়া একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, ওই হোটেলে ঢুকতে দেখা যায় ব্যাটিং কোচ বিক্রম রাঠোর, হেড কোচ রাহুল দ্রাবিড় ও বোলিং কোচ পারস মাম্বরের সাথে দলের একাধিক ক্রিকেটারকে। অতিথিদের কপালে তিলক দেওয়ার রীতি চালু আছে দেশের প্রতিটি পাঁচতারা হোটেলেই। হোটেল কর্মীরা সেটা মেনেই সবার কপালে তিলক লাগাচ্ছেন। যদিও সিরাজ ও উমরান অস্বীকার করেন কপালে তিলক নিতে। এর ফলেই বিতর্ক শুরু হল।

সাধারণত এভাবে কপালে টিকা দিয়ে স্বাগত জানানো হয়ে থাকে হিন্দু ধর্মের রীতিতেই। তাই দাবি নেটিজেনদের একাংশের, দেশ নয়, সিরাজ ও উমরান তিলক নিতে রাজি হননি নিজেদের ধর্মকে এগিয়ে রাখতে! আবার অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন, দুই জোরে বোলারের কি সমস্যা হয়ে যেত কপালে তিলক নিলে! তবে এমন বিতর্কের মধ্যেও সিরাজ ও উমরানের পাশে দাঁড়িয়েছেন অনেক নেটিজেনরা। তাদের দাবি, কোন ব্যক্তির সম্পূর্ণ এটা ব্যক্তিগত পছন্দ। এখানে কোন মানেই হয় না, ধর্মের রং যোগ করার। তাছাড়া সিরাজ ও উমরান শুধু নন, ব্যাটিং কোচ বিক্রম রাঠোর ও আর এক সাপোর্ট স্টাফকেও দেখা যায়নি তিলক নিতে। ফলে কাঠগড়ায় সিরাজ ও উমরানকে দাঁড় করানো অর্থহীন।

তবে আগেও অনেকবার এমন ঘটনা সামনে এসেছে। মহম্মদ সামি দীপাবলির শুভেচ্ছা তার প্রিয়জনদের জানালেই, বারবার তাকে ট্রল করা হয়েছে। পরভেজ রসুলকেও এর আগে ট্রল করা হয়েছিল। টি-টোয়েন্টি অভিষেক ম্যাচে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে কটাক্ষের শিকার হয়েছিলেন। অভিযোগ ছিল এই অফ স্পিনারের বিরুদ্ধে, কাশ্মীরের এই ক্রিকেটার নাকি খেলার আগে জাতীয় সংগীত চলার সময় চুইংগাম চিবোচ্ছিলেন! এবার এমন ইস্যু নিয়ে সিরাজ ও উমরান প্রথমবার কটাক্ষের শিকার হলেন।