চোটে গোটা বছর মাঠের বাইরে, আইপিএলের এক মাস আগেই সুস্থ জাতীয় দলের পেসার !!

পরপর চোট পাওয়ার ফলে তিনি দীর্ঘদিন মাঠের বাইরে ছিলেন। ভারতের হয়ে তিনি কোন সিরিজে খেলতে পারেননি। আইপিএলের এক মাস আগে সেই পেসার পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠেছেন। গতবছর চোটের কারণে তিনি পুরোপুরি ভাবেই মাঠের বাইরে ছিলেন। এশিয়া কাপ ও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপও তিনি খেলেননি। এখন পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠেছেন দীপক চাহার। তিনি সম্পূর্ণভাবে সুস্থ হয়ে উঠেছেন আইপিএলের একমাস আগেই। এমনটা চাহার নিজেই জানিয়েছেন।

চাহার আইপিএলে মহেন্দ্র সিং ধোনির দল চেন্নাই সুপার কিংসের হয়ে খেলেন। গতবার তিনি আইপিএল খেলতে পারেননি। কিন্তু এবারে খেলবেন। চাহার সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে বলেছেন, “আমি খুব পরিশ্রম করেছি গত দু-তিন মাস ধরে। এখন আমি সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠেছি আইপিএল খেলার জন্য।”

চাহার প্রথমে পিঠে চোট পেয়েছিলেন। পিঠের চোট সারিয়ে মাঠে নেমে প্রথম ম্যাচে মাত্র তিন ওভার বল করে এই ডানহাতি পেসার হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট পান। তিনি জানিয়েছেন খুব একটা সহজ হবে না দুটি চোট সারিয়ে আবার ফিরে আসা। চাহার বললেন, “দুটোই বড়চোট পেয়েছিলাম। ফেরাটা খুব একটা সহজ ছিল না। পেসারদের চোট সারিয়ে উঠতে আরো বেশি সময় লাগে। আমার ক্ষেত্রেই শুধু নয়, চোট সারিয়ে উঠে মাঠে ফিরতে গোটা বিশ্বের জোরে বোলারদেরও বেশি সময় লাগে। তবে এখন আমি পুরোপুরি সুস্থ।”

ভারতীয় দলে ২০১৮ সালে অভিষেকের পর থেকে চাহার ১৩ টি একদিনের ম্যাচ ও ২৪টি টি-টোয়েন্টি খেলেছেন। ২০২২ সালে সবকটি ম্যাচ মিলিয়ে তিনি মাত্র ১৫ টি ম্যাচ খেলতে মাঠে নেমেছেন। চাহার সাদা বলের ক্রিকেটে পাওয়ার প্লে-তে খুবই কার্যকর বোলার। কিন্তু তিনি না থাকার জন্য দলকে অনেক খেসারত দিতে হয়েছে।

চলতি বছরে শুরুতে ভারতে একদিনের বিশ্বকাপ হবে। চাহার কি সেই দলে সুযোগ পাবে! আইপিএল ও তারপরে এশিয়া কাপে ভারতীয় পেসার কেমন খেলছেন তার উপর নির্ভর করছে। চাহার এই প্রসঙ্গে বললেন,“ফলাফলে বিশ্বাস করি না আমি। আমি বল-ব্যাট যাই করি না কেন আমার লক্ষ্য থাকে আমি নিজের ১০০ শতাংশ দেবো। সেটা যদি আমি দিতে পারি তাহলে ঠিক আমি সুযোগ পাবো।”