লেটেস্ট খবরসাফল্যের খবর শিক্ষার খবরঅফবিটটেক নিউজ

৯ মাসের গর্ভবতী অবস্থায় পরীক্ষা দিয়ে IPS অফিসার হলেন শাহনাজ

WhatsApp Group   Join Now UPSC: মাতৃত্বকালীন ছুটিতে দেশের সবচেয়ে কঠিন সরকারি চাকরির পরীক্ষা UPSC তে পাশ করলেন শাহনাজ লিয়াজ।জানা গিয়েছে ৯ মাসের গর্ভবতী অবস্থায় ...

Published on:

WhatsApp Group   Join Now

UPSC: মাতৃত্বকালীন ছুটিতে দেশের সবচেয়ে কঠিন সরকারি চাকরির পরীক্ষা UPSC তে পাশ করলেন শাহনাজ লিয়াজ।জানা গিয়েছে ৯ মাসের গর্ভবতী অবস্থায় তিনি পরীক্ষায় বসেছিলেন। UPSC র মতো পরীক্ষায় উত্তীর্ন হওয়ার পর শাহনাজ জানান, শুরু থেকেই তাঁর জীবনের অন্যতম স্বপ্ন ছিল সরকারি চাকরি করা।

তিনি যেই সময় মাতৃত্বকালীন ছুটিতে ছিলেন সেই সময় তামিলনাড়ু পাবলিক সার্ভিস কমিশন -এর জন্য প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন।শাহনাজ UPSC তে উত্তীর্ন হওয়ার আগে প্রায় ৫ বছর ধরে আইটি সেক্টরে কাজ করছেন। কলেজ পাশের পর পরই চাকরি পেয়ে যান তিনি। ৫ বছর ধরে চাকরি করার ফলে তার বেতনও ভাল জায়গাতেই এসে গিয়েছে এর মধ্যেই। কিন্তু তা সত্ত্বেও সেই ‘জব স্যাটিসফেকশন’ পেতেন না তিনি।

গর্ভবতী মহিলাদের শরীর, মনের উপর দিয়ে যে পরিমাণ স্ট্রেস যায়, তা সহ্য করেই তিনি সরকারি পরীক্ষার পড়াশোনা চালিয়ে যান। শুরুর দিকে তিনি রাজ্য সিভিল সার্ভিসের প্রস্তুতি নিয়েছিলেন। সেই সময়েই তিনি বুঝতে পারেন যে, আরেকটু চেষ্টা করলে UPSC-র সিলেবাসও তিনি কভার করে ফেলতে পারবেন। এরপর আরও পড়াশোনা করে কেন্দ্রীয় সিভিল সার্ভিসের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন শাহনাজ।

Shahnaz
Shahnaz

প্রথমবারের চেষ্টাতেই প্রিলিম পাশ করে যান তিনি।শাহনাজ জানান, গর্ভবতী হওয়ার কারণে তিনি বাপের বাড়িতে ছিলেন।বেবি বাম্প নিয়েই প্রতিদিন ৮-১০ ঘণ্টা পড়াশোনা চালিয়ে যান।ওই সময় তাঁকে সাহস জোগানো ও সহায়তা করার জন্য মা-বাবাকে ধন্যবাদও জানান তিনি।

পরীক্ষার প্রস্তুতি কিভাবে নিয়েছেন,তার কথা বলতে গিয়ে শেহনাজ জানিয়েছেন, তিনি মাসের শুরুতেই পরিকল্পনা করে নিতেন যে কতটা সিলেবাস, কোন কোন বিষয়ে কভার করতে হবে, কোনটা রিভাইস করতে হবে।এই প্ল্যান মেনেই পুরো মাস পড়াশোনা করতেন।

জীবনে প্রথমবারের মতো UPSC পরীক্ষা দিয়েই বাজিমাৎ করে ফেলেছেন শাহনাজ।সর্বভারতীয় স্তরে ২১৭তম স্থান অর্জন করেছেন তিনি। এই পরীক্ষায় পাশ করে তিনি আইপিএস হয়েছেন। বর্তমানে ট্রেনিং শেষ করে শাহনাজ তামিলনাড়ুতে কর্মরত। তিনি জানান, ‘লক্ষ্য স্থির করার সঠিক সময়টা বুঝতে হবে। তারপর তা পূরণ করুন। বছরের পর বছর ধরে আইটি সেক্টরে কাজ করার পরেই আমি বুঝতে পেরেছিলাম যে আমি এবার আরও বড় কিছু করতে তৈরি। এমন কোনও কাজ, যা করার মাধ্যমে একটি সামাজিক অবদান রাখতে পারব।’

আরও পড়ুন: Mimi Chakraborty: পশ্চিমী পোশাকে নয়, বরং মেটালিক লেহেঙ্গা-চোলিতে নজর কাড়লেন মিমি

About Author