‘চার উইকেট নিয়ে দারুণ লাগছে’ তৃতীয়বার হ্যাটট্রিকের সুযোগ হাতছাড়া হলেও আক্ষেপ করছেন না কুলদীপ

দিল্লির অরুণ জেটলি ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শিখর ধাওয়ান ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যে তিনটি ওডিআই সিরিজের তৃতীয় ও নির্ধারক ম্যাচে টসে জিতে বোলিং করার সিদ্ধান্ত নেন এবং ভারতীয় বোলারদের দুরন্ত পারফরমেন্স অধিনায়ককে হতাশ করেননি।

তারা এতটাই শক্ত বোলিং করেছিলেন যে দক্ষিণ আফ্রিকা দল 100 রানের গন্ডি টপকাতে রীতিমতো হিমশিম খায়। ৯৯ রানে অলআউট হয়ে যায় পূর্ণশক্তির দক্ষিণ আফ্রিকান দল। ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডেতে এটাই তাদের সর্বনিম্ন স্কোর। এর আগে ১৯৯৯ সালে নাইরোবিতে ভারতের বিপক্ষে দক্ষিণ আফ্রিকার সর্বনিম্ন স্কোর ছিল 117 রানের।

দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটসম্যানদের উপর আক্রমণ হানে ভারতীয় বোলাররা। শার্দুল ঠাকুর এবং আভেশ খান বাদে চার ভারতীয় বোলার তাদের দুরন্ত বোলিং পারফরমেন্সের উপর উইকেট নিয়েছেন। দক্ষিণ আফ্রিকাকে অলআউট করার সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করেন চায়নাম্যান স্পিনার কুলদীপ যাদব। তিনি মাত্র ৭ বলে দক্ষিণ আফ্রিকার তিন ব্যাটসম্যানকে শিকার করেন।

কুলদীপ পরপর দুই বলে দুই উইকেট নেন। কুলদীপ দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংসের 26তম ওভারের তৃতীয় বলে Bjorn Fortuyn কে এলবিডব্লিউ আউট করেন এবং তারপর তীক্ষ্ণ গুগলিতে এনরিক নরখিয়াকে ফিরত পাঠান। এই উইকেটে তিনি পৌঁছে গেলেন হ্যাটট্রিকের দ্বারপ্রান্তে। তবে লুঙ্গি এনগিডি কুলদীপের হ্যাটট্রিক আশা পূরণ হতে দেননি।

কুলদীপ তার পরের ওভারের প্রথম বলেই মার্কো ইয়ানসেনকে আউট করে ৯৯ রানে দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংসের ইতি টেনে দেয়। দক্ষিণ আফ্রিকার শেষ ৬ উইকেট পড়ে যায় ৩৩ রানে যার মধ্যে ৪টি উইকেট আসে কুলদীপের খাতায়। কুলদীপ ৪.১ ওভারে ১৮ রান দিয়ে ৪টি উইকেট নেন। একটি ওভার মেডেন দিয়ে কুলদীপের দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ওয়ানডেতে এটাই সেরা পারফরম্যান্স। তিনি এখন পর্যন্ত দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে 10 ইনিংসে 16.16 গড়ে 24 উইকেট নিয়েছেন।

এই দলের বিপক্ষে ৩ বার ৪ উইকেট নেওয়ার কীর্তি গড়েছে কুলদীপ। ইনিংসের বিরতির মাঝে কুলদীপ বলেন, ‘চার উইকেট নিয়ে দারুণ অনুভূতি হচ্ছে। অনেক দিন পর আবার চার উইকেট নেওয়ার সুযোগ পেলাম। আসলে গত আইপিএল থেকে আত্মবিশ্বাস ফিরে পেয়েছি। যেখানেই যতটুকু সুযোগ পেয়েছি, আলাদা কিছু পারফর্ম করার চেষ্টা করেছি। নিজের বোলিং উপভোগ করছি।’

হ্যাট্রট্রিক হাতছাড়া নিয়ে আক্ষেপ করছেন না কুলদীপ। কুলদীপ আরো বললেন‘হ্যাট্রট্রিক হাতছাড়া করলেও ভাল লাগছে। কারণ মাঠে নেমে পারফর্ম করতে পেরেছি। তবে আমার মনে হয় আঙ্গেল বদলে বলকে হাওয়াতে একটু জোরের উপর রাখলে উইকেট তুলতে সুবিধা হত।